AD_1
পিসিসি বিডি। পুলিশ ক্নিয়ারেন্স টিউটোরিয়াল।
Home Problems Status Pending Draft Chalan Rejectted E-Chalan Refused QR-Code Payment Apply Privacy About Contact More

আপনার ওয়ার্ড কাউন্সিলর সার্টিফিকেটের আবশ্যিকতা


    আপনি যখন পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট পাওয়ার জন্য অনলাইন পুলিশ ক্লিয়ারেন্স ওয়েব পেইজে আবেদনের কাজ করতে যাবেন তখন দ্বিতীয় ধাপে আপনার বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানার তথ্য ইনপুট করতে হয় । তখন আপনি যদি আপনার বর্তমান ঠিকানা ব্যবহার করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার বর্তমান ঠিকানার পক্ষে একটি ওয়ার্ড কাউন্সিলর সার্টিফিকেটের কপি আবেদনের সহিত সাবমিট করতে হবে। তবে এখানে উল্লেখ্য যে, আপনার বর্তমান ঠিকানাটি অবশ্যই পাসপোর্টে উল্লেখ করা সংশ্লিষ্ট মেট্রো/জেলাধীন হতে হবে । একটু পরিস্কার করে বললে- আপনার পাসপোর্টের এড্রেসেটি যদি ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার কোন একটি থানা হয় তাহলেই কেবল আপনি অন্য থানার অধীনে আবেদন করতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আপনি বর্তমানে যে ওয়ার্ডে বসবাস করছেন সেই ওয়ার্ডের একটি কাউন্সিলস সার্টিফিকেটর প্রয়োজন হবে। আবেদনের কাজ করার সময় পাসপোর্ট কপি যেখানে আপলোড করবেন সেইখানে ওয়ার্ড কাউন্সিলর সার্টিফিকেট আপলোড করার জায়গায় উক্ত সার্টিফিকেটটি আপলোড করতে হবে। অন্যথায় সংশ্লিষ্ট মেট্রো/জেলার পুলিশ অফিস আপনার বর্তমান ঠিকানায় আবেদন গ্রহণ করবেন না। এসময় সতর্ক থাকতে হবে আপনি যে কাগজগুলো আপলোড করছেন সেগুলো যেন পড়া যায় কারণ অনেকেই এমন কাগজ আপলোড করেন যেগুলো ঠিকভাবে বোঝা যায় না, পড়া যায় না। আপনার আবেদন বাতিল হওয়ার কারণ এটিও হতে পারে। তাই সতর্কতার সহিত কাজ করাই উত্তম। লেখাটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।
    Ad_3

পেনডিং ফর পেমেন্ট


    Pending for Payment পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট বিষয়ে, অনলাইন আবেদন প্রক্রিয়ার অত্যন্ত গুরত্ত্বপূর্ণ একটি স্ট্যাটাস। এই কারেন্ট স্ট্যাটাসটা Payment বিষয়ে হওয়ায় এবং এই বিষয়ে অবগত না থাকার কারণে অনেক আবেদকারীর আবেদন জমা হয় না। বিশেষ করে যারা অনলাইনে আবেদন করার সময়ই কার্ড বা বিকাশের মাধ্যমে ট্রেজারী চালান জমা প্রদান করেন, তারা ভাবেন আমিতো পে-মেন্ট করেছি। আমার কাজ শেষ। এবার সার্টিফিকেট হাতে পাওয়ার অপেক্ষা মাত্র। কিন্তু পরবর্তীতে দেখা যায়, তার আবেদনটি জমাই হয়নি! আইডিতেই পড়ে আছে। একটা বিরাট ভুল বোঝা-বুঝির সৃ্ষ্ট হয়। এই আবেদনকারীরাই ফোন দিয়ে বলেন- ভাই আমিতো পে-মেন্ট করেছি। আমার আবেদনটা থানায় পাঠিয়ে দেন। উনারা ভাবেন আমরাই বুঝি পাঠাইনি। আসলে বিষয়টা উনি জানেন না বলেই এই কথা বলছেন। যখন তাকে বুঝিয়ে বলি এবং বাকি কাজ করতে সহযোগীতা করি তখন তিনি শান্ত হোন, নিজের ভুল বুঝতে পারেন এবং ধন্যবাদ দিয়ে ফোনটি রেখে দেন। অনলাইন আবেদন বিষয়ে যারা একদম নতুন তাদের বোঝার সুবিধার্থে একটু প্রথম থেকে বলছি-

    একটি আবেদন সাবমিট করার জন্য আপনাকে ছয়টি ( ০৬ ) ধাপ অত্রিক্রম করতে হবে
    ( ১ ) Personal Information প্রথম ধাপে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট পাওয়ার জন্য পাসপোর্ট নম্বরসহ ব্যক্তিগত তথ্য দিতে হয়। তখন একটি রেফারেন্স নম্বর ক্রিয়েট হয়। উদাঃ 190******* এই নম্বরটি অত্যন্ত গুরুত্ত্বপূর্ণ । আপনি যখন আপনার প্রয়োজনে পুলিশ আইটি হেল্পডেস্কে ফোন করবেন তখন আপনাকে হেল্প করার জন্য পুলিশ আইটি হেল্পডেস্ক থেকে আপনার রেফারেন্সটি জানতে চাইবে। ( ২ ) Personal Address দ্বিতীয় ধাপে আপনার ঠিকানার তথ্য দিতে হয়। তখন সিস্টেমস আপনাকে তৃতীয় ধাপে নিয়ে যাবে